Ultimate magazine theme for WordPress.

অভিনয়ের জন্য দিলীপ কুমার অমর হয়ে থাকবেন : মির্জা ফখরুল

0

ভারতের কিংবদন্তি অভিনেতা দিলীপ কুমারের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। কিংবদন্তি এ অভিনেতা ৯৮ বছর বয়সে আজ বুধবার সকাল সাড়ে ৭টায় মুম্বাইয়ের পি ডি হিন্দুজা হাসপাতাল অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টারে মৃত্যুবরণ করেন।

আজ এক শোকবার্তায় বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘ভারতীয় চলচ্চিত্র অঙ্গনে কুশলী অভিনেতা দিলীপ কুমারের মৃত্যুতে গোটা ভারতবর্ষে গভীর শোকের ছায়া নেমে এসেছে। দক্ষ এই অভিনয়শিল্পী তাঁর অসাধারণ অভিনয়ের জন্য চলচ্চিত্রপ্রেমী মানুষের মনে চিরজাগরুক এবং অমর হয়ে থাকবেন। তিনি তাঁর উত্তরসূরী অভিনেতা-অভিনেত্রীদের জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত। সিনেমা জগতে তিনি একজন উজ্জ্বল জ্যোতিষ্ক। এই কুশলী অভিনেতা ব্যক্তিগত জীবনেও ছিলেন অত্যন্ত উদারচেতা ও বিনয়ী স্বভাবের অধিকারী।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ভারত-পাকিস্তানের বৈরিতা কমিয়ে দু-দেশের সাংস্কৃতিক মেলবন্ধনের জন্য দিলীপ কুমার দীর্ঘদিন কাজ করার পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সঙ্গে কাজ করেছেন সমাজের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের কল্যাণের জন্য। অমর এই অভিনয়শিল্পীর মৃত্যুতে ভারতীয় অভিনয় জগতে যে শূন্যতার সৃষ্টি হলো, তা সহজে পূরণ হওয়ার নয়। বলিউড কিংবদন্তি দিলীপ কুমারের মৃত্যুতে আমি গভীরভাবে শোকাহত। আমি দিলীপ কুমারের আত্মার শান্তি কামনা করছি এবং শোকসন্তপ্ত পরিবার, ভক্ত ও গুণগ্রাহীদের প্রতি গভীর সহমর্মিতা জানাচ্ছি।’

এ ছাড়া পৃথক পৃথক শোকবার্তায় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য ও বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব গাজী মাজহারুল আনোয়ার এবং বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক আশরাফ উদ্দিন আহমেদ উজ্জ্বল ভারতের কিংবদন্তি অভিনেতা দিলীপ কুমারের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। শোকবার্তায় তাঁরা দিলীপ কুমারকে ভারতের খ্যাতনামা ও জনপ্রিয় অভিনেতা হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, তাঁর মৃত্যুতে ভারতীয় চলচ্চিত্রাঙ্গনে যে শূন্যতার সৃষ্টি হলো, তা সহজে পূরণ হওয়ার নয়।

শ্বাসকষ্ট নিয়ে মুম্বাইয়ের হিন্দুজা হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভর্তি ছিলেন দিলীপ কুমার। আজ বুধবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মৃত্যু হয় তাঁর। শেষ সময়ে স্ত্রী সায়রা বানু তাঁর পাশে ছিলেন। তাঁর মৃত্যুতে শোকাচ্ছন্ন ভারতের বিনোদন অঙ্গন। দিলীপের মৃত্যুতে শোক জ্ঞাপন করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়সহ বিভিন্ন অঙ্গনের তারকারা।

বলিউডের ‘ট্র্যাজেডি কিং’ হিসেবে পরিচিত ছিলেন দিলীপ কুমার। ভারতীয় চলচ্চিত্র শিল্পে তাঁর অবদান অনেক।

চল্লিশ দশকে বলিউডে যাত্রা শুরু করেন দিলীপ কুমার (প্রকৃত নাম ইউসুফ খান)। ‘নয়া দুয়ার’, ‘মুঘল-ই-আজম’, ‘দেবদাস’, ‘রাম অউর শ্যাম’, ‘আন্দাজ’, ‘মধুমতি’ ও ‘গঙ্গা যমুনা’সহ বহু বিখ্যাত সিনেমায় নায়কের চরিত্রে কাজ করেন। কয়েক দশক টানা রাজত্ব করেন তিনি। ১৯৯৮ সালে ‘কিলা’ তাঁর শেষ সিনেমা। ৬৫টিরও বেশি সিনেমায় তিনি অভিনয় করেছেন।

‘গোপী’, ‘সাজিনা’ ও ‘বৈরাগ’ সিনেমায় সহ-অভিনেত্রী সায়রা বানুকে ১৯৯৬ সালে বিয়ে করেন দিলীপ কুমার।

ষাট দশকের ক্যারিয়ারে কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ভারতের পদ্ম বিভূষণ, পদ্মভূষণ ও দাদাসাহেব ফালকে পুরস্কারে ভূষিত হন দিলীপ কুমার। দিলীপই ভারতের একমাত্র অভিনেতা, যিনি পাকিস্তানের সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার নিশান-ই-ইমতিয়াজ লাভ করেন। এ ছাড়া তিনিই ভারতের প্রথম ফিল্মফেয়ার সেরা অভিনেতা পুরস্কার পান এবং তিনি শাহরুখ খানের সঙ্গে সর্বোচ্চ আট বার এই পুরস্কারে ভূষিত হন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »