Ultimate magazine theme for WordPress.

সিলেট জেলা গোয়াইনঘাট থানা এলাকায় একি পরিবারের তিন জনকে হত্যার ঘটনায় পুলিশ সন্দেহ করছে স্বামী হিফজুর রহমানকে

0

#সিলেট,জৈন্তাপুর প্রতিনিধি;মোঃ রুবেল আহমেদ।সিলেটের গোয়ানইঘাটে একি পরিবারের দুই সন্তানসহ এক নারীকে হত্যার ঘটনায় ওই নারীর স্বামী হিফজুর রহমানকেই (৩৫) সন্দেহ করছে পুলিশ।

হিফজুর আহত অবস্থায় পুলিশ প্রহরায় সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। তার আচরণ প্রথম থেকেই সন্দেহজনক বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বুধবার সকালে সিলেট গোয়ানঘাট উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের বিন্নাকান্দি দক্ষিণ পাড়া গ্রামের নিজ ঘর থেকে হিফজুরের স্ত্রী আলিমা বেগম (৩০), তার দুই সন্তান মিজান (১০) এবং তানিশা (৩)। ওই ঘর থেকেই হিফুজরকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

ঘটনার পর পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করেছিলো সম্পত্তিসংক্রান্ত বিরোধ থেকে এই হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটতে পারে। তবে বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত এবং বিভিন্ন জনকে জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে এখন পুলিশের সন্দেহের তীর আহত হিফজুরের (স্বামী’র ) দিকেই।

এই ঘটনার তদন্তের সাথে সম্পৃক্ত পুলিশের এক উর্ধতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, হিফুর রহমান প্রথম থেকেউ সন্দেহজনক আচরণ করছেন। প্রথমে আমরা তা বুঝতে পারিনি। তিনি ঘরের ভেতরে অজ্ঞানের ভান করে পড়েছিলেন। তবে হাসপাতালে নেওয়ার পর বুঝা যায় তার আঘাত গুরুতর নয়।

হিফজুর রহমানকে সন্দেহের কয়েকটি কারণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাইরে থেকে কেউ হত্যার জন্য এলে সাথে করে অস্ত্র নিয়ে আসতো। তাদের ঘরের (বটি) দা দিয়েই খুন করতো না। বিরোধের কারণে খুনের ঘটনা ঘটলে প্রথমেই হিফুজর রহমানকে হত্যা করা হতো কিংবা স্ত্রী সন্তানদের প্রথমে হামলা করলেও হিফুজর রহমান তা প্রতিরোধের চেষ্টা করতেন। এতে তিনি সবদিকে সবচেয়ে বেশি আঘাতপ্রাপ্ত হতেন।এবং পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হলে তাকেও হত্যা করা হতো।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »