Ultimate magazine theme for WordPress.

পৃথিবীতে এমন অনেক দেশ আছে যেখানে সূর্য অস্ত যায় না।

0

ক্রাইম টিভি বাংলা অনলাইন ডেস্ক —পৃথিবীতে এমন অনেক দেশ আছে যেখানে সূর্য উদয় হলেও অস্ত যায় না। আবার এমন দেশ আছে যেখানে ২২-২৩ ঘন্টা সূর্য আকাশে দেখা যায়। সূর্য অস্ত গেলও তা মাত্র কিছু সময়ের জন্য। এমনই কয়েকটি দেশ ও তার পরিবেশ সম্বন্ধে নীচে বিস্তারিত দেয়া হল।
সুইডেন(Sweden): ইউরোপ মহাদেশের হাজারো ছোট ছোট দ্বীপ নিয়ে এই সুইডেন দেশ অবস্থিত। এই দেশে ৩০ থেকে ৩৫% ছোট ছোট লেক বা জলধারা দ্বারা পরিপূর্ণ। এই দেশে আপনি রাত ১২ টার সময় চাইলে সূর্য দেখতে পাবেন। সেখানে মাত্র ২ ঘন্টার জন্য সূর্য্য অস্ত যায়। আবার ভোর ৪ টার দিকে সূর্য উদিত হয়। এই ঘটনাটি সাধারণত মে মাস থেকে আগস্ট মাস পর্যন্ত দেখা যায়।
নরওয়ে(Norway): নরওয়ে ইউরোপ মহাদেশের একটি দেশ যার সুইডেনের সাথে সীমানা ভাগ করে নেয়। পাহাড়-পর্বতে পরিপূর্ণ এই দেশটিতে বছরে প্রায় ৮০ দিন এখানে সূর্য অস্ত যায় না। সেই কারণে নরওয়েকে “মিডনাইট সান” এর দেশ বলা হয়। মে মাস থেকে জুলাই মাস পর্যন্ত এই দেশে এরকম ঘটনা ঘটে। এই সময়ে বহু পর্যটক এখানে আসে “মিডনাইট সান” উপভোগ করতে।
কানাডা(Canada): উত্তর আমেরিকার কানাডা এমন একটি দেশ যেখানে প্রায় এক-তৃতীয়াংশ স্থান বরফে ঢাকা থাকে। বরফের চাদরে ঢাকা দেশের মধ্যে এটিই বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ। এই দেশের কিছু কিছু জায়গায় রয়েছে যেখানে গরমের সময় ৫০ দিন সূর্য অস্ত যায় না। ভ্রমণের জন্য এটি অত্যন্ত একটি জনপ্রিয় দেশ।
আইসল্যান্ড(Iceland): আইসল্যান্ড মে মাস থেকে জুলাই মাস পর্যন্ত ২৪ ঘন্টা সূর্য দেখা যায়। ইউরোপ মহাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম দ্বীপ হচ্ছে আইসল্যান্ড। প্রথম স্থানে রয়েছে ইংল্যান্ড। চারদিকে জলধারা পরিপূর্ণ এই দেশের প্রাকৃতিক পরিবেশ, ঝর্না ও ভাসমান বরফ যথেষ্ট আকর্ষণীয়।
আলাস্কা(Alaska): বরফের দেশ আলাস্কার মে মাস থেকে জুন-জুলাই পর্যন্ত আকাশের সব সময় সূর্য দেখা যায়। আলাস্কা দেশ নিজের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ও সূর্যের আলো বরফের উপর যখন পড়ে তখন একপ্রকার আভার সৃষ্টি হয়। এই দুটি জিনিস আলাস্কায় দর্শনার্থীদের আকর্ষণ করে।
ফিনল্যান্ড(Finland): ফিনল্যান্ডে বছরের ৭৫ থেকে ৮০ দিন সূর্য অস্ত যায় না। গরমের সময় ফিনল্যান্ডে ২৪ ঘন্টাই সূর্যের আলো দেখা যায়। বছরের অন্য সময় এখানে ২২ ঘন্টা সূর্য দেখা যায়। মিড নাইট সান ছাড়া ফিনল্যান্ড হ্রদ ও লেকের জন্য বিখ্যাত। এখানে ছোট-বড় মিলিয়ে মোট লক্ষাধিক জলাশয় আছে যা ভ্রমণকারীদের অত্যন্ত পছন্দের।
উপরের এই সমস্ত দেশের বেশির ভাগই গরমের সময় আকাশে সব সময় সূর্য দেখা যায়। এর প্রধান কারণ হলো এইসব দেশগুলির নিজেদের ভৌগোলিক অবস্থান। আমরা জানি আমাদের পৃথিবীর ২৩.৫° নিজের অক্ষের উপর হেলে রয়েছে।
সেই কারণে পৃথিবীর দুই মেরু দক্ষিণ মেরু অথাৎ আন্টার্টিক সার্কেল ও উত্তর মেরু অথাৎ আর্টিক সার্কেল। এই দুই সার্কেল এর মধ্যে যে সমস্ত দেশ গুলো পড়ে সেই সব দেশে বছরে মাসের পর মাস দিন ও এমন কিছু সময় আসে যখন সূর্য একেবারেই উদয় হয় না ২৪ ঘন্টাই রাতের অন্ধকারে থাকতে হয়।

যে দেশে সূর্য কখনও ওঠে না
মুরমানস্ক, রাশিয়া এমন একটি শহর যা রাশিয়ার অন্যান্য শহরের চেয়ে আলাদা। ডিসেম্বর থেকে জানুয়ারি মাসের মধ্যে রাশিয়ার এই শহরে ৪০ দিন ২৪ ঘন্টা অন্ধকার থাকে। এই সময় কে পোলার নাইট বলে।
৪০ দিন অন্ধকার হবার ফলে শহরে বসবাসকারী ৩ লক্ষ মানুষকে যথেষ্ট সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। সেই কারণে শহরের প্রায় প্রত্যেকটি ঘরবাড়ি গুলোর ভেতরে উজ্জ্বল আলো ও বিভিন্ন যে সমস্ত চাদর, বেড কভার, দরজা জানালার পর্দাগুলো খুব উজ্জ্বল রঙের করা হয়।
যাতে ঘরের ভেতরে অন্ধকার কোন প্রভাব না ফেলে। বাইরে থেকে দেখতে ঘর-বাড়ি গুলিকে যথেষ্ট ভাল লাগলেও এই সময় এখানকার মানুষ জনের জীবন যাপন যথেষ্ট কষ্টের হয়।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »