Ultimate magazine theme for WordPress.

বাংলাদেশে আসতে হলে যে সব শর্ত মানতে হবে

0

ক্রাইম টিভি বাংলা অনলাইন ডেস্ক…শর্ত সাপেক্ষে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু হয়েছে।
গত ১ মে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালুর ঘোষণা দেয় বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।
ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনা করে ৩৮টি দেশে যাওয়া-আসার ওপর শর্ত আরোপ করেছে বেবিচক।
করোনা সংক্রমণ রোধে গত ১৪ এপ্রিল থেকে বাংলাদেশের সব আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ ছিল।
তবে প্রবাসী কর্মীদের কথা বিবেচনা করে ১৭ এপ্রিল থেকে পাঁচটি দেশে ফ্লাইট চালু হয়। পরে আরও কয়েকটি দেশে ফ্লাইট চলাচল শুরু হয়।

করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বিবেচনা করে বিশ্বের সব দেশকে বেবিচক তিনটি গ্রুপে ভাগ করেছে।
গ্রুপ-এ হচ্ছে অতি ঝুঁকিপূর্ণ, গ্রুপ-বি হচ্ছে ঝুঁকিপূর্ণ, গ্রুপ সি হচ্ছে সাধারণ। বেবিচকের অতি ঝুঁকিপূর্ণ (গ্রু-এ) দেশের তালিকায় রয়েছে ১২টি দেশ।
ঝুঁকিপূর্ণ (গ্রুপ-বি) দেশের তালিকায় রাখা হয়েছে ২৬টি দেশের নাম।
অতি ঝুঁকিপূর্ণ (গ্রু-এ) ১২টি ও ঝুঁকিপূর্ণ (গ্রুপ-বি) ২৬টিসহ ৩৮টি দেশ ছাড়া বিশ্বের বাকি দেশ রয়েছে গ্রুপ-সি’তে।
বেবিচকের সদস্য (ফ্লাইট সেফটি অ্যান্ড রেগুলেশন) গ্রুপ ক্যাপ্টেন চৌধুরী মোহাম্মদ জিয়াউল কবীর বলেন, সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুসারে নতুন নিয়ম করা হয়েছে।
এটি ১ মে থেকে কার্যকর হয়েছে।
স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্ট দফতরের পরামর্শে অতি ঝুঁকিপূর্ণ, ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকা করা হয়েছে।
তাদের পরামর্শে কোয়ারেন্টিন সংক্রান্ত বিধিনিষেধও তৈরি করা হয়েছে।

বাংলাদেশ থেকে বিদেশে যেতে এবং বিদেশে থেকে বাংলাদেশে আসতে করোনা পিসিআর পদ্ধতিতে করোনা টেস্ট বাধ্যতামূলক।
তবে ১০ বছরের নিচের বাচ্চাদের টেস্ট করার প্রয়োজন নেই।
শুধু করোনা টেস্টে নেগেটিভ ফলাফল এলেই দেশে আসা বা বিদেশে যাওয়া যাবে। ফ্লাইটের ওঠার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে করতে হবে করোনা টেস্ট।

অন্যদিকে করোনার জন্য ভ্যাকসিন গ্রহণ করলেও বিধিনিষেধ মানতে হবে। আলাদা কোনও ছাড় পাওয়া যাবে না।
স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, ভ্যাকসিন নিলে কেউ করোনায় আক্রান্ত হননি এমন নজির নেই।
ভ্যাকসিন নিলেও যেকেউ করোনা আক্রান্ত হতে পারেন।
ফলে ভ্যাকসিন নিলেও কোয়ারেন্টিনের বিধিনিষেধ মানতে হবে।
বেবিচকের হিসাবে অতি ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে ১২টি দেশ ‘গ্রপ-এ’তে রয়েছে- আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, কলম্বিয়া, কোস্টারিকা, সাইপ্রাস, জর্জিয়া, ভারত, ইরান, মঙ্গোলিয়া, ওমান, সাউথ আফ্রিকা ও তিউনিসিয়া।
বেবিচক জানিয়েছে, এসব দেশ থেকে কোনও যাত্রী বাংলাদেশে আসতে পারবেন না। বাংলাদেশ থেকেও এই ১২ দেশে যাওয়া যাবে না।

তবে সরকারের অনুমতি নিয়ে এই ১২ দেশে ১৫ দিনের মধ্যে ভ্রমণকারী (বসবাসকারী নয়) বাংলাদেশি নাগরিক দেশে আসতে পারবেন।
এক্ষেত্রে তাদের নিজ খরচে সরকার নির্ধারিত হোটেলে বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।
বিদেশে ফ্লাইটে ওঠার আগেই হোটেল বুকিং করতে হবে, যা বোডিং কার্ড ইস্যুর সময় চেক করবে এয়ারলাইন্সগুলো।

বাংলাদেশের প্রচুর মানুষ চিকিৎসার জন্য ভারতে যান। অতি ঝুঁকিপূর্ণ তালিকা থাকায় আপাতত দেশটি থেকে বাংলাদেশিদের আসতে হলে আগে থেকে অনুমতি নিতে হবে।
অন্যদিকে এ তালিকায় আরও রয়েছে ওমান, সাউথ আফ্রিকা।
এ দুটি দেশে অনেক প্রবাসী কর্মী বসবাস করেন।
ইতোমধ্য ওমান সরকার বাংলাদেশ থেকে যাত্রী প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। অন্যদিকে বাংলাদেশও নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।
ফলে বড় এই শ্রমবাজারের দেশটিতে আপাতত প্রবেশের সুযোগ পাচ্ছেন না প্রবাসী কর্মীরা।
অন্যদিকে বাংলাদেশে ফেরতে হলেও তাদের আগে থেকে অনুমিত নিতে হবে সরকাররে কাছ থেকে। তুলনামূলক কম ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকা করা হয়েছে ‘গ্রপ-বি’তে। সেখানে রয়েছে ২৬টি দেশ। এগুলো হচ্ছে- অস্ট্রিয়া, আজারবাইজান, বাহরাইন, বেলজিয়াম, চিলি, ক্রোয়েশিয়া, এস্তোনিয়া, ফ্রান্স, জার্মানি, গ্রিস, হাঙ্গেরি, ইরাক, কুয়েত, ইতালি, লাটভিয়া, লিথুনিয়া, নেদারল্যান্ড, প্যারাগুয়ে, পেরু, কাতার, ¯ভেনিয়া, স্পেন, সুইডেন, সুইজারল্যান্ড, তুরস্ক ও উরুগুয়ে।

বেবিচক জানিয়েছে, এই তালিকার দেশগুলো থেকে বাংলাদেশে আসা যাবে। তবে যাত্রীদের সরকার নির্ধারিত হোটেলে নিজ খরচে বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। বিদেশে ফ্লাইটে ওঠার আগেই হোটেল বুকিং করতে হবে, যা বোডিং কার্ড ইস্যুর সময় চেক করবে এয়ারলাইন্সগুলো।

ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকায় থাকলেও বাহরাইন, কুয়েত ও কাতারের ক্ষেত্রে শর্ত শিথিল করা হয়েছে। এই তিন দেশ থেকে এলে ১৪ দিনের বদলে তিন দিন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। সরকারি কোয়ারেন্টিন সেন্টারে থাকার সুবিধা পাবেন প্রবাসীরা। তবে সেখানে জায়গা না থাকলে সরকার নির্ধারিত হোটেলে নিজ খরচে থাকতে হবে। এজন্য বোডিং কার্ড ইস্যু করার আগে এয়ারলাইন্সগুলো সরকারি কোয়ারেন্টিন সেন্টারে জায়গা খালি আছে কিনা তা যাত্রীকে নিশ্চিত করবে। খালি না থাকলে যাত্রীকে বোডিং কার্ড ইস্যুর আগেই হোটেলে বুকিং করতে হবে। দেশে আসার তিনদিন পর যাত্রীদের করোনা টেস্ট করানো হবে। রিপোর্ট নেগেটিভ এলে তারা বাকি ১১ দিন বাড়িতে গিয়ে কোয়ারেন্টিনে থাকবেন।

বেবিচক গ্রুপ-এ’তে থাকা ১২টি এবং ‘গ্রুপ-বি’তে থাকা ২৬টি অর্থাৎ মোট ৩৮টি দেশ ছাড়া বিশ্বের অন্য সব দেশকে এই গ্রুপের আওতায় রেখেছে। এসব দেশ থেকে বাংলাদেশে এলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন না হলেও বাড়িতে বাধ্যতামূলক ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। ফলে সউদী আরব, আবুধাবি, দুবাই, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসা যাত্রীরা বাড়িতে গিয়ে কোয়ারেন্টিনে থাকবেন।

অন্যদিকে, অতি ঝুঁকিপূর্ণ ১২টি এবং ঝুঁকিপূর্ণ ২৬টি, এই ৩৮টি দেশে ট্রানজিট হয়ে দেশে আসা কিংবা বিদেশ যাওয়া যাবে কিনা সেই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। এক্ষেত্রে ট্রানজিট হয়ে বিদেশ যাওয়া বা আসা যাবে। তবে দেশে আসার ক্ষেত্রে অতি ঝুঁকিপূর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকায় থাকা ৩৮টি দেশে ট্রানজিট হয়ে এলে, কোনও অবস্থায় দেশটির ভেতরে প্রবেশ করা যাবে না। যাত্রীকে এয়ারলাইন্সের তত্ত্বাবধানে বিমানবন্দরের ভেতরেই থাকতে হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »