Ultimate magazine theme for WordPress.

শ্রাবন্তীর জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় শুরু

0

ক্রাইম টিভি বাংলা অনলাইন ডেস্ক…

জীবনের নতুন অধ্যায় শুরু করেছেন টলিউড অভিনেত্রী শ্রাবন্তী। স্বামী রোশান সিংয়ের সঙ্গে টানাপোড়েন ভুলে গিয়ে নতুন পথে পা বাড়িয়েছেন তিনি। শ্রাবন্তীর নতুন অধ্যায় নিয়ে জোর আলোচনা চলছে টলিউডে।সোমবার (০১ মার্চ) ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দল বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন শ্রাবন্তী। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, রাজ্য পর্যক্ষেক কৈলাশ বিজয়বর্গী, সাংসদ স্বপনদাশ গুপ্তর উপস্থিতিতে বিজেপির পতাকা হাতে তুলে নিয়েছেন এ তিনি। রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার পর মঙ্গলবার (২ মার্চ) নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন শ্রাবন্তী। লিখেছেন, ‘প্রণাম। গতকাল থেকে জীবনের এক গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় শুরু হল। তাই আপনাদের কাছে নত মস্তকে আশীর্বাদ কামনা করছি। একজন মা এবং নারী হিসেবে চাইব আমাদের সবার সন্তান যেন ‘সোনার বাংলা’ তে বড় হয়ে উঠুক।’ স্ট্যাটাসের শেষে ‘জয় শ্রী রাম’ এবং হ্যাশট্যাগ সোনার বাংলা লিখেছেন এ নায়িকা।

শ্রাবন্তীর স্ট্যাটাসে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন নেটিজেনরা। মন্তব্যের ঘর থেকেই সে ধারণা পাওয়া যাচ্ছে। ভক্তদের অনেকে শ্রাবন্তীকে শুভেচ্ছা জানালেও এক হাত নিয়েছেন দুষ্টু নেটিজেনদের কেউ কেউ। অভিনেত্রীকে কটাক্ষ করে সানায়া সানা লিখেছেন, ‘দয়া করে বহুবিবাহ আইন চালু করতে আন্দোলন করবেন না। একজন মা আর নারী হিসেবে নিজের পরিবার সন্তানের কাছে আগে ভালো আর আদর্শনীয় হতে হয়। দয়া করে সেটা বুঝুন। ঝান্ডা নিয়ে নাড়ালেই হয়ে যায় না।’

তার নীচেই আবির নামে একজন লিখেছন, ‘একজন অভিনেত্রী হয়ে এটা আপনার শোভা পেলো না। বাংলা টলিউডের রাণী ছিলে তুমি। বিশ্বাস করো আজকের পর থেকে কেউ তোমাকে দেখে ক্রাশ খাবে না।’১৯৯৭ সালে ‘মায়ার বাঁধন’ সিনেমার মাধ্যমে অভিনয় জীবন শুরু করেন শ্রাবন্তী। ২০০৩ সালে ‘চ্যাম্পিয়ন’ সিনেমায় অভিনয় করে আলোচনায় আসেন তিনি। এরপর প্রায় অর্ধশতাধিক সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি। টলিউডের পাশাপাশি ঢালিউডের সিনেমাতে অভিনয় করেছেন শ্রাবন্তী। অভিনয় ক্যারিয়ার শুরুর কয়েক বছর পরই ২০০৩ সালে পরিচালক রাজীব বিশ্বাসকে বিয়ে করেন শ্রাবন্তী। এ দম্পতির একমাত্র সন্তান অভিমান্যু চ্যাটার্জি (ঝিনুক)। অজানা কারণে ২০১৬ বিচ্ছেদ হয় তাদের। তারপর ২০১৯ সালে রোশান সিংকে বিয়ে করেন শ্রাবন্তী।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »