Ultimate magazine theme for WordPress.

জাপানের পর্যটন খাত বিধ্বস্ত-

জাপানিদের বিদেশে ব্যয়ের তুলনায় জাপানে বিদেশীদের ব্যয়ের উদ্বৃত্ত ছিল রেকর্ড ২ হাজার ৬০০ কোটি ডলার।

0

©ক্রাইম টিভি বাংলা অনলাইন ডেস্ক♦

গত বছর জাপানে ভ্রমণ আগের বছরের তুলনায় এক-পঞ্চমাংশে নেমে গিয়েছিল। ২০১৫ সালের পর প্রথমবারের মতো পূর্ব এশিয়ার দেশটিতে পর্যটকদের সংখ্যা তলানিতে গিয়ে ঠেকেছিল। নভেল করোনাভাইরাস মহামারীতে আন্তর্জাতিক ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার কারণে আন্তর্জাতিক পর্যটকের সংখ্যা কমে যাওয়ায় দেশটির পর্যটন খাত বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছে। খবর মাইনিচি।

গতকাল প্রকাশিত দেশটির অর্থ মন্ত্রণালয়ের প্রাথমিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ট্রাভেল ব্যালান্সে বিদেশী দর্শনার্থীরা জাপানে যে পরিমাণ ব্যয় করে এবং জাপানিরা অন্য দেশে গিয়ে যে পরিমাণ ব্যয় করে, তার তুলনামূলক চিত্র উঠে আসে। ২০১৯ সালে জাপানিদের বিদেশে ব্যয়ের তুলনায় জাপানে বিদেশীদের ব্যয়ের উদ্বৃত্ত ছিল রেকর্ড ২ হাজার ৬০০ কোটি ডলার। এটি গত বছর ৭৯ দশমিক ২ শতাংশ কমে ৫৩০ কোটি ডলারে নেমেছিল।

ভয়াবহ ভূমিকম্প, সুনামি ও পরবর্তীকালে ফুকুশিমা পারমাণবিক সংকটে ২০১১ সাল পর্যন্ত উত্তর-পূর্ব জাপানে ভ্রমণ ব্যাপকভাবে সীমাবদ্ধ ছিল। এরপর দেশটির বার্ষিক ভ্রমণ ভারসাম্যটি বিদেশী দর্শনার্থীর অবিচ্ছিন্ন সংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে ২০১৯ সাল পর্যন্ত টানা বৃদ্ধি দেখেছে।

এদিকে গত বছর পণ্য বাণিজ্যের ভারসাম্য টানা পঞ্চম বছরের মতো বেড়েছিল। এটি পূর্ববর্তী বছরের তুলনায় প্রায় আট গুণ লাফিয়ে ২ হাজার ৯০০ কোটি ডলারে পৌঁছেছে। অপরিশোধিত তেল ও অন্যান্য জ্বালানির দাম কমে যাওয়ায় আমদানি-রফতানিতেও প্রভাব পড়েছিল। ভ্রমণের ভারসাম্যের দুর্বল পারফরম্যান্সের কারণে কার্গো পরিবহনসহ ৩ হাজার ৪০০ কোটি ডলার ঘাটতি চিহ্নিত হয়েছে, যা ২০১৯ সালে ১১৮ কোটি ডলার উদ্বৃত্তের পর গত বছর বৃহত্তম হ্রাস।

জাপান পর্যটন সংস্থার পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত বছর ৪১ লাখ ২০ হাজার বিদেশী জাপান সফর করেছিল। এটি ২০১৯ সালে ৩ কোটি ১৮ লাখের তুলনায় ৮৭ দশমিক ১ শতাংশ কম। গত গ্রীষ্মে জাপান মূলত টোকিও অলিম্পিক ও প্যারা অলিম্পিক গেমসের আয়োজক ছিল। তবে মহামারীর মধ্যে আয়োজন এক বছরের জন্য স্থগিত করা হয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »