Ultimate magazine theme for WordPress.

কানাডায় পড়তে গিয়ে লাশ হলেন সাকিব

0

©ক্রাইম টিভি বাংলা অনলাইন ডেস্ক ♦

সাকিবের স্বপ্ন ছিল বিদেশে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়া শেষ করে এসে দেশে ভালো কোনো চাকরি করা। আর মাত্র ২ সেমিস্টার পড়া বাদ ছিল; কিন্তু এরই মধ্যে ছেলের মৃত্যুর সংবাদ শুনতে হলো।

কথাগুলো শুক্রবার বিকালে বলছিলেন কানাডায় নিখোঁজের পর মৃতদেহ উদ্ধার হওয়া শিক্ষার্থী সামিউজ্জামান সাকিবের বাবা আসাদুল ইসলাম।

নিহত শিক্ষার্থী সামিউজ্জামান সাকিব ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার উল্যা গ্রামের আসাদুল ইসলামের ছেলে। বর্তমানে সাকিবের পরিবারে বাবা-মা ও বড় ভাই ঢাকাতে অবস্থান করছেন।

সাকিবের বাবা আসাদুল ইসলাম বলেন, মেধাবী ছাত্র সামিউজ্জামান সাকিব কানাডার মালিতোবার বিশ্ববিদ্যালয় অ্যান্ড কলেজে ভর্তি হয়েছিল। ওই কলেজে সে ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সের ৪র্থ বর্ষে লেখাপড়া করত। অদৃশ্য কারণে সে গত ৯ তারিখ থেকে নিখোঁজ ছিল।

গত বুধবার সাকিবের লাশ কলেজের পাশে একটি লেকের পাড় থেকে উদ্ধার করা হয়। বিষয়টি তার বন্ধুরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে। তবে সরকারিভাবে এখনও কিছু জানানো হয়নি।

কানাডার ইউনিপেগ পুলিশ মোবাইলে গত বুধবার রাতে বিষয়টি জানায়। সাকিবের মরদেহ বর্তমানে ময়নাতদন্তের প্রক্রিয়ায় রয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক কমিউনিটির মাধ্যমে কানাডায় সাকিবের মরদেহ দাফন করা হবে বলে পারিবারিকভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে বোঝা যাবে তার মৃত্যুর কারণ।

তিনি আরও বলেন, ২ ছেলের মধ্যে বড় ছেলে হাসিবুজ্জামানকে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করিয়েছি। ভাইয়ের মতো সাকিবও বড় ইঞ্জিনিয়ার হবে- এমন শখ থেকে তাকে কানাডায় পাঠিয়েছিলাম। এখন আমার সব শেষ। বলতে বলতে তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »