Ultimate magazine theme for WordPress.

সম্পর্ক গড়ে বিপাকে আমিরাত, হোটেলের জিনিসপত্র চুরি করছে ইসরায়েলিরা

0

ইসরায়েলের সঙ্গে সুসম্পর্ক তৈরি করে যেন বিপাকেই পড়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। ইসরায়েলি পর্যটকদের ‘জ্বালায়’ হোটেলগুলোতে ছোটখাটো জিনিস রাখা কঠিন হয়ে গেছে তাদের জন্য। ব্যাগে ভরে নিয়ে যাওয়া যায় এমন যা কিছুই পাচ্ছে, সব চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে ইসরায়েলিরা। এ নিয়ে শোরগোল তুলেছে খোদ ইসরায়েলের গণমাধ্যমই।

গত সপ্তাহে ইয়েদিয়ত আহারোনত নামে একটি পত্রিকা জানিয়েছে, তেল আবিব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যে সরাসরি বিমান চলাচল শুরু হয়েছে মাত্র এক মাস হলো, এর মধ্যেই ইসরায়েলি পর্যটকদের কারণে অতিষ্ট আমিরাতের হোটেলগুলো।

পত্রিকাটির কাছে এক ব্যবসায়ী বলেন, আমি অনেক বছর আগে আমিরাতে এসে ব্যবসা শুরু করেছিলাম। গতমাসে হোটেলে পৌঁছে রীতিমতো আতঙ্কিত হয়ে পড়ি। সেখানে ইসরায়েলিরা হোটেল ছাড়ার আগে তাদের ব্যাগ খুলে রুমের খোয়া যাওয়া জিনিসপত্র খোঁজা হচ্ছিল।

আমিরাতের এক হোটেল ম্যানেজার বলেন, সারাবিশ্ব থেকে শত শত পর্যটক আসেন আমাদের এখানে, ঝামেলা করেন খুব কম লোকই। সম্প্রতি আমরা ইসরয়েলি পর্যটকদের নিয়ে স্তম্ভিত। তারা হোটেল থেকে পরিবহনযোগ্য সব; যেমন- তোয়ালে, চা-কফির ব্যাগ, এমনকি ল্যাম্পও নিয়ে যাচ্ছে।

উদাহরণস্বরূপ তিনি বলেন, এক ইসারয়েলি পরিবার হোটেল ত্যাগ করতে চাচ্ছিল। আমরা দেখি, রুমের বেশ কিছু জিনিসপত্র গায়েব। হোটেলের কর্মী এর কারণ জিজ্ঞেস করলে তারা চিৎকার-চেঁচামেচি শুরু করেন। তর্কের একপর্যায়ে তারা ব্যাগ খুলতে রাজি হন। দেখা যায় এর ভেতর আইস বাকেট, হ্যাঙ্গার আর মুখ মোছার তোয়ালে রয়েছে। এরপর আমরা পুলিশ ডাকতে চাইলে তারা সেগুলো ফিরিয়ে দিতে রাজি হন এবং ক্ষমা চান।

বিদেশে গিয়ে ইসরায়েলিদের উদ্ভট কর্মকাণ্ড অবশ্য নতুন কিছু নয়। এধরনের কাজের জন্য সমালোচিত হয়েছেন খোদ ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রীই।

অভিযোগ রয়েছে, বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু এবং তার স্ত্রী বিদেশ সফরে যাওয়ার সময় ব্যাগভর্তি ময়লা কাপড় নিয়ে যান শুধু বিনামূল্যে ধোয়ানোর জন্য। গত বছর হোয়াইট হাউস গেস্টহাউসের কর্মীদের বরাতে এ তথ্য প্রকাশ করেছিল ওয়াশিংটন পোস্ট।

বাহরাইন ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়ন চুক্তি করতে কয়েক মাস আগে যুক্তরাষ্ট্র সফরে গিয়েছিলেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু, সঙ্গে ছিলেন তার স্ত্রী সারা নেতানিয়াহু।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক এক মার্কিন কর্মকর্তা বলেন, ‘নেতানিয়াহুরাই (প্রধানমন্ত্রী ও তার স্ত্রী) একমাত্র ব্যক্তি, যারা পরিষ্কার করাতে ব্যাগভর্তি ময়লা কাপড় নিয়ে আসেন। কয়েকবার সফরের পর এটা নিশ্চিত যে, তারা ইচ্ছা করেই কাজটি করেন।’

ওই সফরে নেতানিয়াহু দম্পতি কয়টি স্যুটকেস নিয়ে গিয়েছিলেন সেটি জানায়নি ওয়াশিংটন পোস্ট। তবে ওবামা ও ট্রাম্প প্রশাসনের কর্মকর্তারা ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর আগের সফরগুলোতে একাধিকবার ব্যাগভর্তি নোংরা কাপড় পরিষ্কার করার তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে, ২০১৮ সালে একটি সরকারি সফরেও সারা নেতানিয়াহু চার-পাঁচটি স্যুটকেস ভর্তি করে ময়লা কাপড় নিয়ে গিয়েছিলেন বলে খবর ছড়িয়েছিল। এর দুই বছর আগে ব্যক্তিগত লন্ড্রি বিল গোপন রাখার দাবিতে নিজের অফিস এবং ইসরায়েলি অ্যাটর্নি জেনারেলের বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন নেতানিয়াহু। ২০১৯ সালে সরকারি তহবিলের কয়েক হাজার পাউন্ড বিলাসী খানাপিনায় ব্যয় করার অভিযোগ উঠেছিল তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে। ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধেও দুর্নীতির অভিযোগে একাধিক মামলা চলছে দেশটিতে।

সূত্র: তাসনিম নিউজ, ওয়াশিংটন পোস্ট

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »