Ultimate magazine theme for WordPress.

ভেনিজুয়েলায় আইনসভার ভোট বিরোধীদের বয়কট।

0

©ক্রাইম টিভি বাংলা অনলাইন ডেস্ক ♦

ভেনিজুয়েলায় নতুন কংগ্রেস বেছে নিতে রোববার আইনসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। যদিও অনেক আগে থেকেই বিরোধীরা নির্বাচন বয়কটের ঘোষণা দিয়েছে। বেশির ভাগ পশ্চিমা দেশ গতকালের এ নির্বাচনকে প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর ক্ষমতাসীন সোস্যালিস্ট পার্টির পুনরায় ক্ষমতা গ্রহণের জালিয়াতি বলে অভিযোগ তুলেছে। খবর রয়টার্স।

যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞায় ওপেকভুক্ত দেশটির তেল রফতানি বাধাগ্রস্ত এবং প্রায় ৫০ লাখ নাগরিকের অভিবাসন জটিলতায় ধ্বংসপ্রাপ্ত অর্থনীতি নিয়ে লড়াই করার মধ্যেও মাদুরোর মিত্রদের কংগ্রেসে ফেরা প্রায় নিশ্চিত। যদিও নতুন কংগ্রেস সদস্যদের ভেনিজুয়েলার নাগরিকদের জীবনযাত্রার উন্নতি করার সুযোগ খুব কমই থাকবে। যেখানে নাগরিকদের মাসিক বেতন দিয়ে একদিনের মুদি কেনাকাটাও করা যায় না।

তাছাড়া তাদের নির্বাচনের অব্যবস্থাপনা ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য পশ্চিমা দেশগুলোর মধ্যে মাদুরোর সুনাম বৃদ্ধিরও কোনো সুযোগ নেই। অনেক ভেনিজুয়েলান বিদ্যুৎ, সুরক্ষা ও খাদ্যের মতো মৌলিক চাহিদাগুলো নিয়ে লড়াই করছেন। তাদের দাবি, রাজনীতিবিদরা তাদের জীবনযাপন উন্নয়নে কিছুই করেনি।

বর্তমান কংগ্রেসের প্রধান বিরোধী নেতা হুয়ান গুয়াইদো নাগরিকদের ৬ ডিসেম্বরের ভোট বর্জন এবং ১২ ডিসেম্বর আলোচনায় অংশ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। এ আলোচনার মাধ্যমে নাগরিকদের জিজ্ঞাসা করা হবে, তারা রোববারের ভোট প্রত্যাখ্যান করেছেন কিনা এবং তারা সরকারের পরিবর্তন চান কিনা। বেশির ভাগ পশ্চিমা দেশ ২০১৮ সালে মাদুরোর পুনর্নির্বাচনকে প্রতারণামূলক আখ্যায়িত করার পর যুক্তরাষ্ট্রসহ ৫০টিরও বেশি দেশ গুয়াইদোকে অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে।

এ দেশগুলো গুয়াইদোর স্বীকৃতি অব্যাহত রাখবে বলেও আশা করা হচ্ছে। যদিও বিরোধীরা এমন প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা করছে, যা তার অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের আকারকে সীমাবদ্ধ করতে এবং রাষ্ট্রদূতের সংখ্যা হ্রাস করতে পারে।

শনিবার আইনসভায় রোববারের ‘অনুষ্ঠানকে’ প্রতারণামূলক ও অসাংবিধানিক বলে নিন্দা করার একটি প্রস্তাব অনুমোদিত হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, এর মাধ্যমে ভেনিজুয়েলাবাসীর অবাধ, স্বচ্ছ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের অধিকার কেড়ে নেয়া হয়েছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নিষেধাজ্ঞা ও কূটনৈতিক চাপ সত্ত্বেও মাদুরো সামরিক বাহিনী এবং রাশিয়া, কিউবা, চীন ও ইরানের সমর্থন নিয়ে ক্ষমতা টিকিয়ে রেখেছেন।

বৃহস্পতিবার ভেনিজুয়েলার মার্কিন রাষ্ট্রদূত এলিয়ট আব্রামস রয়টার্সকে জানিয়েছেন, মাদুরোর ওপর চাপ বজায় রাখার বিষয়ে ওয়াশিংটনের দৃঢ় অবস্থান রয়েছে। ২০ জানুয়ারি প্রেসিডেন্ট হিসেবে জো বাইডেন দায়িত্ব নেয়ার পরও মার্কিন নীতিতে বড় ধরনের পরিবর্তন হবে না বলে মনে করেন তিনি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »