Ultimate magazine theme for WordPress.

ব্রাজিল হতে পারে করোনা পরবর্তী পর্যটকদের জন্য উপযুক্ত পর্যটন স্থল।

বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম দেশ হিসেবে রাশিয়া, কানাডা, চীন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরেই ব্রাজিলের অবস্থান। কানাডা ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পর এটি আমেরিকা মহাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম দেশ। দেশটিতে মোট তিনটি টাইম জোন অবস্থিত।

0

©ক্রাইম টিভি বাংলা অনলাইন ডেস্ক♦  নীলয় দেওয়ান জীবন♦

শত ব্যস্ততার  মাঝেও কার না ভালো লাগে একটু ঘুরে বেড়াতে । আমরা কেন ভ্রমণ করি? ঘুরে বেড়াতে ইচ্ছা হয় বলেই। শরীর এবং মনের প্রফুল্লতা অর্জনের জন্যও। যেহেতু রোমাঞ্চকর স্থানে সময় কাটানো ভালোলাগার বিষয়। মনে স্বস্তিও আনে। কেননা ভ্রমণেও আছে নানান রকমের উপকারিতা। সেটা স্বাস্থ্যের জন্যও।

আর যদি সেটা হয় স্বপ্নের দেশ তাহলে তো কথাই নেই। বাংলাদেশসহ পৃথিবীর যেকোনো দেশের নাগরিকদের ভ্রমণের জন্য সবচেয়ে প্রথম পছন্দের দেশ ব্রাজিল। এটি দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের পূর্ব অংশে অবস্থিত। ব্রাজিলের সাথে চিলি  ও ইকুয়েডর ব্যতীত দক্ষিণ আমেরিকার সকল দেশেরই সীমান্ত-সংযোগ রয়েছে। এর উত্তরে রয়েছে ভেনেজুয়েলা, গায়ানা, সুরিনাম ও ফরাসি গায়ানা। এছাড়াও এর উত্তর-পশ্চিমভাগে কলম্বিয়া; পশ্চিমে বলিভিয়া ও পেরু; দক্ষিণ-পশ্চিমে আর্জেন্টিনা ও প্যারাগুয়ে এবং সর্ব-দক্ষিণে উরুগুয়ে অবস্থিত। দেশটির পূর্বভাগ আটলান্টিক মহাসাগর দ্বারা বেষ্টিত। দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের সবথেকে বড় দেশ হল এই ব্রাজিল।ব্রাজিল দেশটি বেশিরভাগ বিশ্ববাসীর কাছে ফুটবলের জন্য পরিচিত। আটলান্টিক মহাসাগরের তীরে অবস্থিত এই দেশটির প্রাকৃতিক বৈচিত্র যেমন অতুলনীয় তেমনই সংস্কৃতি ও জাতিগত বৈচিত্র্যও অনেক।

মহামারী করোনা চলাকালে মানুষ বন্দীদশা কাটাতে খুঁজতে শুরু করেছেন নিরিবিলি ও মনোরম পরিবেশ। চলতি মাসে গুগলের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে পৃথিবীর ভ্রমন প্রিয় মানুষগুলো সবচেয়ে বেশি খুঁজেছেন ব্রাজিল দেশটি। ভ্রমণের জন্য এই সময়ে সবচেয়ে নিরাপদ এবং সৌন্দর্যের তুলনায় সবচেয়ে আকর্ষণীয় কাতারের প্রথম রয়েছে ব্রাজিল। ভ্রমণ আপনাকে লক্ষ্য অর্জনেও সাহায্য করবে। ভ্রমণ করলে আপনি কিছুটা ইতিবাচক চিন্তার অধিকারী হবেন। মনে করুন, পাহাড়ে ওঠার লক্ষ্য অর্জন করলে আপনি হয়তো আবার একটি লক্ষ্য ঠিক করে নিবেন। এভাবে লক্ষ্য অর্জন আপনাকে দিতে পারে আত্মবিশ্বাস এবং সফলতা। ব্রাজিলের জলবায়ু সাধারণত উষ্ণ থাকে। অঞ্চলেরভেদে গড় তাপমাত্রা ১৫ থেকে ২৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত থাকে। তাই ব্রাজিল ভ্রমণে আগ্রহী বেশি পর্যটকরা ।

দুইটি প্রধান শহরের বাইরেও ব্রাজিলের তৃতীয় বৃহত্তম শহর হচ্ছে দেশটির পুরনো রাজধানী এবং সমুদ্র তীরবর্তী শহর রিও ডি জেনেইরো। এই শহরের মনোরম সৌন্দর্য, সমুদ্র সৈকত এবং শহরের বনভূমি ছাড়াও শহরের অন্য আকর্ষণ এর ঐতিহাসিক ভবনগুলো। এ শহরেই অবস্থিত যীশু খ্রিষ্টের বিখ্যাত সেই মূর্তি। কর্কভাদো পাহাড়ের চূড়ায় মূর্তিটি এমনভাবে দাঁড়িয়ে আছে যেন যিশু তার দুহাত প্রসারিত করে পুরো শহরকে আলিঙ্গন করছেন। এই শহরেই ব্রাজিলের বিখ্যাত মারাকানা ফুটবল স্টেডিয়াম অবস্থিত। ব্রাজিলে ঘন ও বেশ জটিল নদী ব্যবস্থা বিদ্যমান, যা বিশ্বের অন্যতম জটিল নদী ব্যবস্থা। ব্রাজিলের উল্লেখযোগ্য নদীগুলোর মধ্যে রয়েছে আমাজন, যা বিশ্বের দ্বিতীয় দীর্ঘতম নদী ও নিষ্কাশিত পানির পরিমাণের ওপর ভিত্তি করে বিশ্বের সবচেয়ে বড় নদী।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »