Ultimate magazine theme for WordPress.

‘রাশিয়া আংশিক মুসলিম রাষ্ট্র’- রুশ প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ

0

©ক্রাইম টিভি অনলাইন ডেস্ক♦

রুশ প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেছেন, রাশিয়া আংশিক মুসলিম রাষ্ট্র, রাশিয়ায় দুই কোটির বেশি মুসলিম বাস করে।  রাশিয়ায় বেশিরভাগ মানুষ খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বী হওয়ায় দেশটির প্রধান ধর্ম হলো খ্রিস্টধর্ম। আমাদের দেশের স্বতন্ত্রতা এর বহু-জাতিগত এবং বহু-ধর্মীয় প্রকৃতিতে স্পষ্টভাবে রয়েছে এবং সব ধর্ম একে অপরের প্রতি পূর্ণ শ্রদ্ধায় বসবাস করে।

বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ।  খবর রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা তাসের।

ফ্রান্সের বিতর্কিত শার্লি এবদোর মতো কোনো সংবাদমাধ্যম প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয় উল্লেখ করে রুশ প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেন, রাশিয়ায় ইসলামবিদ্বেষী প্রচারণা মেনে নেয়া হবে না।  রাশিয়ার রাষ্ট্রব্যবস্থার কারণে দেশটির ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানে এমন কোনো গণমাধ্যমের অস্তিত্ব থাকা সম্ভব না।

তিনি বলেন, কোনো ধর্মীয় বিশ্বাসের প্রতি অবমাননা ও ধর্মপ্রাণ জনগোষ্ঠীর অনুভূতিতে আঘাত হানা রাশিয়ার দৃষ্টিতে গ্রহণযোগ্য নয়। মানুষের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়া যেমন অগ্রহণযোগ্য একই সঙ্গে এজন্য কাউকে হত্যা করাও অবশ্যই অগ্রহণযোগ্য।

ধর্মীয় বিষয়ে কার্টুন প্রকাশ করা উচিত কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি মন্তব্য করতে অপারগতা প্রকাশ করে বলেন, এটা খুবই জটিল বিষয়। আমি এ বিষয়ে মতামত দেয়ার আগে আলোচনা করে আমাদের অফিসিয়াল অবস্থান জানতে হবে।

এর আগে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স)-কে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ইউনাইটেড নেশনস এন্টি-এক্সট্রারেমিজম (জাতিসংঘের ধর্মীয় স্থাপনার সুরক্ষা ও ধর্মীয় সহিষ্ণুতা বিষয়ক সংস্থা)।

সংস্থাটির প্রধান মিগুয়েল এঞ্জেল মোরাটিনস বুধবার এক বিবৃতিতে বলেছেন, ওইসব ব্যঙ্গচিত্রের পুনঃপ্রকাশ বিশ্বের বহু মুসলমানের জন্য অপমানজনক ও ভয়াবহ আক্রমণাত্মক।  ধর্ম ও পবিত্র ধর্মীয় প্রতীকগুলোর অবমাননা ঘৃণা উসকে দেয় এবং সহিংস উগ্রবাদ সমাজকে মেরুকরণ ও খণ্ডিত হওয়ার দিকে ঠেলে দেয়।

এর আগে বুধবার ফ্রান্সে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা বিষয়ক এক ক্লাসে মহানবী হজরত মোহাম্মদ (সা.)-এর কার্টুন দেখানোর কারণে শিক্ষককে হত্যার ঘটনা ঘটে।  এ নিয়ে ফ্রান্সজুড়ে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া হয়।  দেশটির প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ দেশের ধর্মনিরপেক্ষ মূল্যবোধ সমুন্নত রাখার পক্ষে জোরালো অবস্থান নিয়ে ইসলামকে সরাসরি আঘাত করেন।  এছাড়াও ফ্রান্স ব্যঙ্গচিত্র দেখানো বন্ধ করবে না বলেও জানান তিনি।

ফ্রান্স প্রেসিডেন্টের এ ঘোষণায় মুসলিম বিশ্বে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।  এর মাঝে তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের আহ্বান জানান।

সূত্র: তাস, ডেইলি সাবাহ, আলজাজিরা

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »