Ultimate magazine theme for WordPress.

যাদের পেটের মেদ ধীরে ধীরে বেড়ে যাচ্ছে তারা কী করবেন?

0

©ক্রাইম টিভি লাইফস্টাইল ডেস্ক♦

ভুড়ি নিয়ে বিপাকে? পেটের বাড়তি মেদ কমাতে প্রতিদিন কত কিছুই না করছেন। মানতে হচ্ছে কঠিন নিয়ম-কানুন।

যদি বলি যে বেশি দিন কেন, মাত্র এক সপ্তাহে এই বাড়তি মেদ কমানো সম্ভব তবে কি অবাক হবেন?

খুব সহজ কিছু উপায় অবলম্বণেই এক সপ্তাহের মধ্যে কমে যাবে পেটের বাড়তি মেদ। চলুন তবে জেনে নিই: 

সোজা হয়ে মেঝেতে শুয়ে পড়ুন। পা দুটো একটু ফাঁকা রেখে ভাঁজ করে দিন। হাত দু’টো আপনার মাথার দুই পাশে অর্থাৎ কানের পেছনে রাখুন। এবার নিশ্বাস ছাড়তে ছাড়তে ওপরের দিকে উঠুন। খেয়াল রাখবেন মুখ দিয়ে ফুঁ দেওয়ার মতো করে নিশ্বাস ছাড়তে হবে এবং ঘাড়ে কোনো চাপ দেবেন না। আপনি মনোযোগ দেবেন আপনার পেটের মাংসপেশীতে। ঘাড় বাঁকা করবেন না। এবার নিশ্বাস নিতে নিতে নিচের দিকে নামবেন, তবে পুরো মেঝেতে আপনার মাথা লেগে যাবে না; মেঝে থেকে আপনার মাথায় কিছুটা ফাঁক থাকবে। এভাবে আবার ওপরে উঠুন এবং নিচের দিকে ক্রাঞ্চ করে নামুন। এভাবে ১২ বার করবেন।

সোজা হয়ে মেঝেতে শুয়ে পড়ুন। পা দু’টো জোড়া করে সোজা ৯০ ডিগ্রি ওপরে তুলে দিন। হাত দু’টো সোজা পাশে থাকবে। এবার নিশ্বাস নিতে নিতে পা দু’টো জোড়া অবস্থায় নিচে নামান। তবে পা’দুটো মেঝেতে লেগে যাবে না। আপনার পায়ের সঙ্গে মেঝের কিছুটা দূরত্ব থাকবে। ১২ বার করে দুই সেট করুন।

আরো আছে, উপুড় হয়ে শুয়ে সামনে দুই হাত ভাঁজ করে কনুইয়ের ওপর এবং পায়ের ওপর ভর দিয়ে, একটু উঁচু হয়ে শরীরকে একটি সমান্তরাল অবস্থায় রাখতে হবে। এভাবে ঠিক এই অবস্থায় থাকুন ১০-১৫ সেকেন্ড। প্রথম দিকে ১০-১৫ সেকেন্ড থাকবেন। পরে আস্তে আস্তে সময় বাড়িয়ে ৪০-৪৫ সেকেন্ড পর্যন্ত করতে পারবেন। এভাবে একবার হলো, এভাবে তিনবার।

এই ওপরের ব্যায়ামগুলো কঠিন মনে হচ্ছে? বেশ তো, মাত্র ১০ মিনিট সময় দিন। কীভাবে? সম্প্রতি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতি রাতে ঘুমাতে যাবার আগে যদি একজন ব্যক্তি মাত্র ১০ মিনিট আস্তে আস্তে হাঁটেন, তবে তার দেহে যে হরমন ও আঞ্জায়েম নিস্রিত হয়, তাতে সারা দিনে খাবারের সঙ্গে গ্রহণ করা সমস্ত অতিরিক্ত চর্বি রক্ত থেকে পরিস্রুত হয়ে যায় এবং দেহে জমতে পারে না। কেবল এই ১০ মিনিট হাঁটার কারণে যে পরিমাণ চর্বি জমতে বাধা পায়, তা যদি আমরা ব্যায়াম এর মাধ্যমে কমাতে চাইতাম, তার জন্য আমাদের ৩ থেকে ৪ ঘণ্টা এক নাগারে জোরে দৌঁড়াতে হতো!

নিয়ম মেনে পরিমিত ব্যায়াম করে গেলে ও খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করলে পেটের মেদই শুধু নয়, সারা দেহের মেদ কমিয়ে কাঙ্ক্ষিত ফিগার পেতে পারি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »