Ultimate magazine theme for WordPress.

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে টাকার খেলায়ও বাইডেন এগিয়ে।

গত মাসে ডোনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে যো বাইডেন ১৩০ মিলিয়ন ডলার বেশি তহবিল সংগ্রহ করেছেন।

0

©ক্রাইম টিভি বাংলা অনলাইন ডেস্ক ♦ 

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনের সময় যত ঘনিয়ে আসছে ততই জোরদার হচ্ছে অর্থ ব্যয়ের প্রতিযোগিতা। আর এ ব্যাপারটি দৃশ্যমান হয় নির্বাচনের জন্য তহবিল সংগ্রহের আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে। উল্লেখ্য, প্রার্থীরা প্রচারণার জন্য তহবিল সংগ্রহ করতে পারেন ঢাক-ঢোল পিটিয়ে। তবে সে অর্থ ব্যয়ের সঠিক হিসাব সাবমিট করতে হয় কর্তৃপক্ষ সমীপে। যারা চাঁদা/ডোনেশন প্রদান করেন তাদেরও ট্যাক্স ডিপার্টমেন্টসহ বিভিন্ন সংস্থার কাছে জবাবদিহি করতে হয় আয়ের উৎস সম্পর্কে।

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী গত মাসে ডোনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে যো বাইডেন ১৩০ মিলিয়ন ডলার বেশি তহবিল সংগ্রহ করেছেন। শেষ মুহূর্তে নির্বাচনী তহবিল ফুলে-ফেঁপে উঠার মধ্য দিয়ে বাইডেনের বিজয়ের পথ সুসংহত হচ্ছে বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা।

বাইডেনের তহবিলে সেপ্টেম্বরে এসেছে ৩৮৩ মিলিয়ন ডলার। অপরদিকে ট্রাম্প পেয়েছেন ২৪৭.৮ মিলিয়ন ডলার। নির্বাচনী তহবিলের ওপর গভীরভাবে পর্যবেক্ষণরত ফেডারেল সংস্থা শুক্রবার এ তথ্য প্রকাশ করেছে।

সেপ্টেম্বর মাসে বাইডেনের প্রচার তহবিলে ছিল ৪৩২ মিলিয়ন ডলার। অপরদিকে ট্রাম্পের ছিল ২৫১.৪ মিলিয়ন ডলার। এর ফলে সেপ্টেম্বরে শুধু গণমাধ্যমে ভোট প্রার্থনার বিজ্ঞাপনে বাইডেনের ব্যয় টাম্পের চেয়ে ১০ মিলিয়ন ডলার বেশি। সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি রুথ বাদের গিন্সবার্গ পরলোকগমনের পর বাইডেনের জন্য অর্থ প্রদানে হিড়িক পড়ে গেছে। প্রয়াত বিচারপতির শূন্য আসনে ট্রাম্পের পছন্দের ব্যক্তিকে অধিষ্ঠিত করা নিয়ে রিপাবলিকানরা ব্যতিব্যস্ত হয়ে পড়ায় সাধারণ ভোটারের মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া পরিলক্ষিত হচ্ছে এবং বাইডেনের পক্ষে ভোট-বিজ্ঞাপণকে তারা বিজয়ের অন্যতম হাতিয়ার ভাবছেন। একেকজন ৫, ১০, ২০ ডলার করেও চাঁদা দিচ্ছেন বাইডেনকে। বারাক ওবামার নির্বাচনী তহবিল গড়ার সময়ে এমন হিড়িক পড়েছিল সারা আমেরিকায়। এভাবে অর্থ প্রদানের মধ্য দিয়ে বাইডেনের প্রতি সিদ্ধান্তহীন ভোটারের সমর্থন বাড়ছে বলেও মনে করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, বছরের শুরুতে রিপাবলিকানরা ট্রাম্পের পক্ষে ভোট প্রার্থনার বিজ্ঞাপনবাবদ বিলিয়ন ডলারের প্রকল্প ঘোষণা করেছিল। তবে রিপাবলিকানদের সে প্রত্যাশা এখন পর্যন্ত পূরণ হয়নি। করোনার প্রকোপ মহামারিতে রূপ নেওয়া এবং করোনা রোধে ট্রাম্পের সীমাহীন উদাসীনতার ব্যাপারটি অনেক বিত্তশালীকেও হতাশ করেছে। অনেকেই হাত গুটিয়ে নিয়েছেন ট্রাম্পের কাছ থেকে। সর্বশেষ এনবিসি/ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের জরিপে বৃহস্পতিবার দেখা গেছে, জাতীয়ভাবে ট্রাম্পের চেয়ে বাইডেন ১১% এগিয়ে রয়েছেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »