Ultimate magazine theme for WordPress.

দীর্ঘ সাত মাস বন্ধ থাকার পর অবশেষে খুলে দেওয়া হয়েছে ব্রাজিলের সাথে প্যারাগুয়ের সীমান্ত।

0

©ক্রাইম টিভি বাংলা / আলমগীর দেওয়ান আকাশ♦

বিশ্ব মহামারী করোনাভাইরাস এর কারণে সারা পৃথিবীর যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে , সেই সাথে ভেঙে পড়ে অর্থনীতির চাকা। বন্ধ হয়ে যায় এক দেশের সাথে আরেক দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা। দক্ষিণ আমেরিকার সবচেয়ে বড় দেশ ব্রাজিলের সাথে প্যারাগুয়ের যোগাযোগ ব্যবস্থাও বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। দীর্ঘ ছয় মাস ২৭ দিন পর আবারও শুরু হলো ব্রাজিলের সাথে পারাগুয়ের  সীমান্ত। প্যারাগুয়ের অর্থনীতি নির্ভর করে পর্যটন এবং ব্রাজিলিয়ানদের কেনাকাটার উপর। বন্ধের দীর্ঘ এই সাত মাস প্যারাগুয়ের নাগরিকদের জীবনে এক দুর্বিষহ সময় । ব্রাজিলের সাথে প্যারাগুয়ের সীমান্ত একদিন বন্ধ থাকলে তাদের সেই দিনটি অনেক খারাপ যায় । ১৫ই অক্টোবর ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বোলসোনারো ও প্যারাগুয়ের রাষ্ট্রপতি মারিও আবদো বেনিতেজ এর

আলোচনায় খুলে দেওয়া হয় ব্রাজিল এবং প্যারাগুয়ে সীমান্ত। মহামারী করোনাভাইরাস এর কারণে সীমান্ত বন্ধ হওয়ার পরে প্যারাগুয়ের নাগরিকরা একাধিকবার আন্দোলনে নামে রাস্তায় । কিন্তু সংক্রমনের কথা চিন্তা করে সরকার কোনক্রমেই সীমান্ত খুলে দেয়নি । যে কারণে প্যারাগুয়েতে দেখা দেয় অর্থসংকট । অবশেষে সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটল , খুলে দেওয়া হলো দক্ষিণ আমেরিকার সবচেয়ে বড় দেশ ব্রাজিল ও প্যারাগুয়ের সীমান্ত । ব্রাজিল সরকার করোনা মোকাবেলায় ২২ মিলিয়ন ডলার খরচ করেছে চিকিৎসা সেবায় । ব্রাজিলিয়ান জেনারেল ডিরেক্টর জোয়াকিম সিলভা এ লুনা বলেন দুটি দেশের সীমান্ত আবার খুলে দেয়ায় স্থানীয় অর্থনীতি খুব শীঘ্রই চাঙ্গা হয়ে যাবে। ফোজ ডো ইগুয়াসুর পর্যটন এলাকা গুলো আবার খুলে দেওয়া হয়েছে । তবে এই মুহূর্তে শুধু পরিবহন চলাচল করবে এই ব্রিজ দিয়ে । তবে পর্যটকদের জন্য আরো ৩০ দিন বাড়ানো হয়েছে নিষেধাজ্ঞা ।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »