Ultimate magazine theme for WordPress.

ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে পুনর্গঠন পরিকল্পনায় এয়ারএশিয়া এক্স

0

©ক্রাইম টিভি বাংলা ডেস্ক♦ 

নভেল করোনাভাইরাস প্রতিরোধে বিশ্বজুড়ে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এভিয়েশন কোম্পানিগুলো। মালয়েশিয়াভিত্তিক দূরপাল্লার বাজেট এয়ারলাইনার এয়ারএশিয়া এক্স-ও করোনার আঘাত থেকে বাঁচতে পারেনি। লোকসান ও ঋণের বোঝায় জর্জরিত কোম্পানিটি ব্যবসা বাঁচাতে পুনর্গঠন পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। খবর ব্লুমবার্গ।

মঙ্গলবার এই পুনর্গঠন পরিকল্পনা প্রকাশ করেছে এয়ারএশিয়া এক্স। আগামী বছরের শেষ নাগাদ এ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন সম্পন্ন করা হবে বলে কোম্পানিটি আশা করছে। তবে এর আগে বিনিয়োগকারী ও ঋণদাতাদের কাছ থেকে অনুমোদন নিতে হবে তাদের। পরিকল্পনাটি বাস্তবায়িত হলে এয়ারলাইনারটি প্রায় ৬ হাজার ৩৫০ কোটি মালয়েশীয় রিঙ্গিত (১ হাজার ৫৩০ কোটি ডলার) ঋণের বোঝা থেকে মুক্ত হবে।

পুনর্গঠন পরিকল্পনার অংশ হিসেবে নিজেদের ইস্যুকৃত শেয়ার ক্যাপিটাল ৯০ শতাংশ কমানোর প্রস্তাব করেছে এয়ারএশিয়া এক্স। এক্ষেত্রে বিদ্যমান প্রতি ১০টি শেয়ারকে একটি শেয়ারে পরিণত করা হবে। শেয়ার ক্যাপিটাল কমানোর মাধ্যমে কোম্পানিটি ১৩৮ কোটি রিঙ্গিত তহবিল বাড়ানোর প্রত্যাশা করছে, যা দিয়ে লোকসান অনেকটাই কাটিয়ে ওঠা যাবে। ৫ অক্টোবর পর্যন্ত এয়ারলাইনারটির ইস্যুকৃত মোট শেয়ার সংখ্যা ছিল ৪১৫ কোটি, আর শেয়ার ক্যাপিটালের আকার ছিল ১৫৩ কোটি রিঙ্গিত।

এদিকে আগামী বছরের প্রথম প্রান্তিকে দুটি উড়োজাহাজ দিয়ে নির্দিষ্ট রুটে ফ্লাইট পরিচালনার পরিকল্পনা করছে এয়ারএশিয়া এক্স। এরপর ২০২১ সালের শেষ নাগাদ অন্যান্য গন্তব্যে ফ্লাইট পরিচালনা পুনরায় শুরু করবে তারা। কোম্পানিটি জানিয়েছে, এখন তাদের মূল লক্ষ্য থাকবে ৫-৬ ঘণ্টা দূরত্বের গন্তব্যে ফ্লাইট পরিচালনা করা। এছাড়া নতুন ও অলাভজনক গন্তব্যে আর বিনিয়োগ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

করোনার প্রভাবে এভিয়েশন খাতে যে দুর্যোগ নেমে এসেছে, তা থেকে আশু উত্তরণ দেখছে না এয়ারএশিয়া এক্স। চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে ১৩ কোটি ডলার নিট লোকসান গুনতে হয়েছে কোম্পানিটিকে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »