Ultimate magazine theme for WordPress.

দক্ষিণ আমেরিকার দেশ সুরিনামের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৩০ শতাংশ মানুষ মুসলমান।

সুরিনামের মুসমানরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে সর্বত্র হিজাব পরিধান করতে পারেন। রয়েছে বেশকিছু দৃষ্টিনন্দন মসজিদ ও ইসলামি সেন্টার। বিশেষ করে রাজধানী পারামারিবোরি সিটি মসজিদটি পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় স্থান।

0

©ক্রাইম টিভি বাংলা আন্তর্জাতিক ডেস্ক ♦

সুরিনাম আটলান্টিক মহাসাগরের তীরে দক্ষিণ আমেরিকার উত্তর-পূর্ব অংশে অবস্থিত একটি রাষ্ট্র। ১৯৭৫ সালের আগ পর্যন্ত সুরিনাম নেদারল্যান্ডের একটি উপনিবেশ ছিল এবং তখন এর নাম ছিল ওলন্দাজ গায়ানা। সুরিনামের আয়তন এক লাখ ৬৫ হাজার বর্গকিলোমিটার। এটি দক্ষিণ আমেরিকার ক্ষুদ্রতম স্বাধীন রাষ্ট্র। সুরিনামের একমাত্র নগর এলাকা ও রাজধানীর নাম পারামারিবো।

সুরিনাম একটি ছোট দেশ। সুরিনামে বিভিন্ন ধর্ম ও ভাষার লোক বসবাস করেন। সুরিনামের অর্ধেক মানুষ আফ্রিকান বংশোদ্ভূত। বর্তমানে এর লোকসংখ্যা প্রায় পাঁচ লাখ।

সুরিনামের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৩০ শতাংশ মানুষ মুসলমান হলেও দেশটি ওআইসির সদস্য রাষ্ট্র ও আমেরিকার মধ্যে ‘ডাচ ভাষা’ ব্যবহারকারী একমাত্র স্বাধীন দেশ।
সুরিনামের মুসমানরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে সর্বত্র হিজাব পরিধান করতে পারেন। রয়েছে বেশকিছু দৃষ্টিনন্দন মসজিদ ও ইসলামি সেন্টার। বিশেষ করে রাজধানী পারামারিবোরি সিটি মসজিদটি পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় স্থান। এ ছাড়া কোরোনিয়ে ও ওয়ানিকা অঞ্চলের মসজিদগুলোর কথাও উল্লেখ করা যেতে পারে।
সুরিনামে বেশ কয়েকটি মাদ্রাসা রয়েছে। এখানে কোরআনে কারিম শিক্ষা দেওয়া হয়। সুরিনামের হাফেজরা নেদারল্যান্ডের অর্ধেক মসজিদের ইমাম।
সুরিনামের ঐতিহ্য অনুসারে প্রতি বছর আয়োজন করা হয় হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতার। এবারও সেই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে। ‘এতকান’ ইসলামি ইনস্টিটিউটের পক্ষ থেকে এর অায়োজন করা হয়। ‘কোরআন ওয়ার্ল্ড এসোসিয়েশন’-এর সহযোগিতায় ১৬ জন হাফেজের অংশগ্রহণের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয়েছে এবারের প্রতিযোগিতা।
প্রতিযোগিতায় উত্তীর্ণদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে সুরিনামের মন্ত্রী মুহাম্মদ ফয়সাল নুর সালিম, সাবেক সংসদ সদস্য মুহাম্মদ কাস্তুন, হিফজুল কোরআন ওয়ার্ল্ড অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধি আবদুল্লাহ আল শাকুর মুহাম্মদ সাইয়্যেদ ফুক্কাহ, বিচারক কমিটির সদস্য, কোরআনের শিক্ষক, আমন্ত্রিত হাফেজ এবং আগ্রহীরা উপস্থিত ছিল।
পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বক্তারা পবিত্র কোরআনে কারিমের শিক্ষার প্রতি গুরুত্বারোপ করে বক্তব্য রাখেন। বক্তৃতা শেষে প্রতিযোগিতায় উত্তীর্ণদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।
দক্ষিণ আমেরিকার এই দেশটিতে তাবলিগের প্রভাব লক্ষ্য করা যায়। সব মিলিয়ে বলা চলে, সুরিনামে ভালোই বাজছে কোরআনের সুর। কোরআনে কারিমের এ সুরের ধারা ছড়িয়ে যাক পুরো আমেরিকায়- বিশ্বের মুসলমানরা এখন সেই প্রত্যাশায়।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »