Ultimate magazine theme for WordPress.

ইকুয়েডর দক্ষিণ আমেরিকার কৃষি প্রধান দেশ।

ইকুয়েডর একটি স্পেনীয় শব্দ যার অর্থ  ‘বিষুবরেখা’। প্রশান্ত মহাসাগরের উপকূলে অবস্থিত বন্দর শহর গুয়াইয়াকিল দেশের বৃহত্তম শহর।

0

©ক্রাইম টিভি বাংলা ডেস্ক ♦

দক্ষিণ আমেরিকার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় দেশ ইকুয়েডর। এর উত্তরে কলম্বিয়া, দক্ষিণ ও পূর্বে পেরু ও পশ্চিমে প্রশান্ত মহাসাগর। ষোড়শ শতাব্দীতে স্পেনের উপনিবেশ ছিল দেশটি।

রাজধানী কুইটো। ইকুয়েডর একটি স্পেনীয় শব্দ যার অর্থ  ‘বিষুবরেখা’। প্রশান্ত মহাসাগরের উপকূলে অবস্থিত বন্দর শহর গুয়াইয়াকিল দেশের বৃহত্তম শহর।

১৮২২ সালে স্পেনের কবল থেকে মুক্ত হতে পারলেও এটি গ্রেন কলম্বিয়ার অংশ থেকে যায়। এক দশক পর এটি স্বাধীন দেশের মর্যাদা পায়।বিচিত্র জনগোষ্ঠীর বাস এই দেশটিতে।

এক সময় ইনকা সাম্রাজ্যের অংশ ছিল এটি। ইকুয়েডরে ঔপনিবেশিক আমলের বেশ কিছু স্থাপত্য এখনো মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে।

ইকুয়েডর মূলত কৃষি প্রধান দেশ। ১৯৬০ সাল থেকে শিল্পায়ন শুরু হয়।

১৯৭০-এর দশক পর্যন্ত ইকুয়েডর একটি কৃষিপ্রধান দেশ ছিল। এরপর পেট্রোলিয়াম উৎপাদন দেশটির আয় বৃদ্ধি করে। পেট্রোলিয়াম শিল্প থেকে প্রাপ্ত আয় দেশটিকে প্রায় এক দশক ধরে সমৃদ্ধ রেখেছিল। কিন্তু এই আয়ের পরিমাণ কমে গেলে ১৯৯০-এর দশকে অর্থনৈতিক সংকটের সৃষ্টি হয়, মুদ্রার অবমূল্যায়ন ঘটে এবং দেশের বৈদেশিক ঋণের বোঝা বাড়তে থাকে। যদিও সরকার অনেকবার অর্থনৈতিক সংস্কারের চেষ্টা চালিয়েছে, দেশটির অর্থনীতি এখনও দুর্বল ও অস্থিতিশীল।

স্থানীয় অধিবাসীরা এখনো মুক্তঅর্থনীতির ঘোর বিরোধী। মুদ্রাস্ফীতিও অনেক বেশি। অর্থনীতিকে স্থিতিশীল করার জন্য ব্যয়সংকোচন বা বেসরকারীকরণের পদক্ষেপ দেশে অস্থিরতা তৈরি করেছে।

এক নজরে ইকুয়েডর:

পুরো নাম: রিপাবলিক অব ইকুয়েডর।

রাজধানী: কুইটো।

স্বাধীনতা ঘোষণা: স্পেন থেকে ২৪ মে, ১৮২২ সালে।

গ্রেন কলম্বিয়া থেকে : ১৩ মে, ১৮৩০।

সরকার পদ্ধতি: ইউনিটারী পেসিডেন্সিয়াল কনস্টিটিউশনাল রিপাবলিক।

আইনসভা: জাতীয় পরিষদ।

আয়তন: ২ লাখ ৮৩ হাজার ৫৬০ বর্গকিলোমিটার।

জনসংখ্যা: ১ কোটি ৬৩ লাখ ৮৫ হাজার ৬৮ জন।

ঘনত্ব: প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৯৮.৯৫ জন।

মুদ্রা: মার্কিন ডলার।

মাথাপিছু আয়: ১১ হাজার ৭০১ ডলার।

সরকারি ভাষা: স্প্যানিশ।

জাতিসংঘে যোগদান: ১৯৪৫ সালে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »