Ultimate magazine theme for WordPress.

সৌদি আরবকে টপকে বিশ্বের দ্বিতীয় শীর্ষ উত্তোলক রাশিয়া

0

©ক্রাইম টিভি বাংলা অনলাইন ডেস্ক :

অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের শীর্ষ উত্তোলনকারী দেশগুলোর তালিকায় পরিবর্তন এসেছে। চলতি বছরের জুনে সবচেয়ে বেশি জ্বালানি তেল উত্তোলন করে তালিকায় শীর্ষ অবস্থান ধরে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে বদলে গেছে দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থান। আগে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলনকারী দেশ ছিল সৌদি আরব। গত জুনে দেশটি এ অবস্থান হারিয়েছে। এ সময় অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের শীর্ষ উত্তোলনকারী দেশগুলোর তালিকায় দ্বিতীয় শীর্ষ অবস্থানে উঠে এসেছে রাশিয়া। আর তালিকায় সৌদি আরবের অবস্থান তৃতীয় শীর্ষে। জয়েন্ট অর্গানাইজেশনস অব ইনিশিয়েটিভের (জেওডিআই) সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। খবর রয়টার্স ও অয়েলপ্রাইসডটকম।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের জুনে রাশিয়ার কূপগুলো থেকে প্রতিদিন গড়ে ৮৭ লাখ ৮৮ হাজার ব্যারেল অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন হয়েছে। এর বিপরীতে একই সময়ে সৌদি আরবের নিজস্ব কূপগুলো থেকে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দৈনিক গড় উত্তোলনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৭৫ লাখ ব্যারেলে।

চলতি বছরের শুরু থেকে মন্দার মধ্য দিয়ে সময় পার করছে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের আন্তর্জাতিক বাজার। নভেল করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারী জ্বালানি পণ্যটির চাহিদায় রেকর্ড পতন ঘটিয়েছে। এর জের ধরে বছরের শুরু থেকেই তুলনামূলক কমতির দিকে ছিল জ্বালানি তেলের দাম। মার্চ নাগাদ অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের বাজারে রাশিয়ার সঙ্গে মূল্যযুদ্ধে জড়ায় সৌদি আরব। ওই সময় জ্বালানি তেলের উত্তোলন ও রফতানি দুটোই বাড়িয়ে দেয় রিয়াদ।

সৌদি আরবের অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন ও রফতানিতে উল্লম্ফন আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি পণ্যটির দাম রেকর্ড পরিমাণ কমিয়ে দেয়। সৌদি আরব ও রাশিয়ার মধ্যকার মূল্যযুদ্ধের জের ধরে মার্চে প্রতি ব্যারেল জ্বালানি তেলের দাম শূন্য ডলারের নিচে নেমে যায়। ইতিহাসে এর আগে কখনই জ্বালানি পণ্যটির দাম ঋণাত্মক অবস্থানে নামেনি। এপ্রিলেও আন্তর্জাতিক বাজারে তুলনামূলক কম দামে বিক্রি হয় অপরিশোধিত জ্বালানি তেল।

তবে দ্রুত এ অবস্থার পরিবর্তন ঘটে। এর পেছনেও প্রভাবক হিসেবে অবদান রাখে সৌদি আরব ও রাশিয়া। আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের রেকর্ড দরপতনের লাগাম টানতে দেশ দুটির উদ্যোগে দ্রুতই তত্পর হয়ে ওঠে পণ্যটির রফতানিকারকদের জোট অর্গানাইজেশন অব দ্য পেট্রোলিয়াম এক্সপোর্টিং কান্ট্রিজ (ওপেক) ও এর মিত্র দেশগুলো। দুই দেশের উদ্যোগে ওপেক প্লাস নামের এ জোট অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের বৈশ্বিক উত্তোলনে ইতিহাসের সর্বোচ্চ লাগাম টানতে চুক্তি করে। কমিয়ে আনা হয় জ্বালানি পণ্যটির রফতানিও।

ওপেক প্লাসের এ চুক্তির আওতায় জুনে সৌদি আরবকে প্রতিদিন গড়ে ২৫ লাখ ব্যারেল অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন কমানোর কোটা বেঁধে দেয়া হয়েছিল। তবে বাজার ভারসাম্য ফেরানোর স্বার্থে দেশটি স্বপ্রণোদিত হয়ে নির্ধারিত কোটার তুলনায় দৈনিক গড়ে অতিরিক্ত ১০ লাখ ব্যারেল অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন কমিয়েছে। একই সঙ্গে রাশিয়ার কাছে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের শীর্ষ উত্তোলনকারী দেশগুলোর বৈশ্বিক তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থান হারিয়েছে সৌদি আরব।

এর প্রভাব পড়েছে জ্বালানি পণ্যটির রফতানি বাজারে। জুনে সৌদি আরব থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দৈনিক গড় রফতানি ৫০ লাখ ব্যারেলের নিচে নেমে এসেছে। ওই সময় দেশটি থেকে প্রতিদিন গড়ে ৪৯ লাখ ৮০ হাজার ব্যারেল অপরিশোধিত জ্বালানি তেল রফতানি হয়েছে। আগের মাসের তুলনায় দেশটি থেকে জ্বালানি পণ্যটির রফতানি কমেছে ১৭ দশমিক ৩ শতাংশ। গত মে মাসে দেশটি থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতিদিন গড়ে ৬০ লাখ ২ হাজার ব্যারেল অপরিশোধিত জ্বালানি তেল রফতানি হয়েছিল।

এদিকে চলতি বছরের জুনে বিশ্বের শীর্ষ জ্বালানি তেল উত্তোলনকারী দেশ যুক্তরাষ্ট্রের নিজস্ব কূপগুলো থেকে প্রতিদিন গড়ে ১ কোটি ৮ লাখ ৭৯ হাজার ব্যারেল অপরিশোধিত জ্বালানি তেল উত্তোলন হয়েছে বলে প্রতিবেদনে জানিয়েছে জেওডিআই। ২০১৮ সালে সৌদি আরব ও রাশিয়াকে টপকে এ তালিকায় শীর্ষে উঠেছিল যুক্তরাষ্ট্র।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »