Ultimate magazine theme for WordPress.

দক্ষিণ আমেরিকার দেশ চিলি, তামা উত্তোলনে বৈশ্বিক তালিকায় শীর্ষ অবস্থানে ।

চলতি বছরের প্রথমার্ধে (জানুয়ারি-জুন) প্রতিষ্ঠানটির অধীনে ব্যবহারিক ধাতুটির উত্তোলন আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় ৮ শতাংশ বাড়িয়েছে চিলি।

0

©ক্রাইম টিভি বাংলা আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 

তামা উত্তোলনকারী দেশগুলোর বৈশ্বিক তালিকায় শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে চিলি। দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত খনিজ উত্তোলনকারক প্রতিষ্ঠান কোডেলকো বিশ্বের সবচেয়ে বড় তামা উত্তোলনকারী প্রতিষ্ঠান। দেশটির তামা উত্তোলনে নভেল করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারীর প্রভাব খুব একটা দেখা যায়নি। চলতি বছরের প্রথমার্ধে (জানুয়ারি-জুন) প্রতিষ্ঠানটির অধীনে ব্যবহারিক ধাতুটির উত্তোলন আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় ৮ শতাংশ বাড়িয়েছে চিলি। খবর রয়টার্স ও মেটাল বুলেটিন।

দেশটির সরকারি প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে চিলির নিজস্ব খনিগুলো থেকে সব মিলিয়ে ৭ লাখ ৪৪ হাজার টন তামা উত্তোলন হয়েছে। করোনা মহামারীর মধ্যেও এক বছরের ব্যবধানে দেশটিতে ব্যবহারিক ধাতুটির উত্তোলন বেড়েছে ৪ দশমিক ৭ শতাংশ।

কোডেলকোর পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, করোনাকালে প্রতিষ্ঠানটির মুনাফা এক-পঞ্চমাংশ বেড়েছে। চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে কোডেলকো সব মিলিয়ে ৩৮ কোটি ডলার মুনাফা করেছে, যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ২০ শতাংশ বেশি।

দক্ষিণ আমেরিকার অন্যান্য দেশের মতো করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করেছে চিলি। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ১০ হাজার ৬৭১ জন। আক্রান্ত হয়েছে ৩ লাখ ৯১ হাজার ৮৪৯ জন। সংক্রমণের শুরু থেকেই তামা উত্তোলনের খনিগুলোর কার্যক্রম সাময়িক বন্ধ রাখার জন্য কোডেলকোর ওপর চাপ দিয়ে আসছিল শ্রমিক ইউনিয়নগুলো। তবে এ চাপের কাছে নতজানু হয়নি প্রতিষ্ঠানটির কর্তৃপক্ষ। এর সুফল পেয়েছে কোডেলকো। বছরের প্রথম ছয় মাসে নিজস্ব খনিগুলো থেকে তামা উত্তোলন বাড়ানোর পাশাপাশি অর্ধবার্ষিক মুনাফা এক-পঞ্চমাংশ বাড়িয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

এদিকে বছরের প্রথম ছয় মাসে বাড়তির দিকে থাকলেও মাসভিত্তিক হিসাবে সর্বশেষ জুনে চিলিতে তামা উত্তোলন আগের তুলনায় কমে এসেছে। কোডেলকোর প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের জুনে চিলির নিজস্ব খনিগুলো থেকে ব্যবহারিক ধাতুটির সম্মিলিত উত্তোলন আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় দশমিক ৬ শতাংশ কমে এসেছে। করোনা মহামারীর শুরুর পর জুনে প্রথমবারের মতো দেশটিতে তামার উত্তোলন কমেছে।

চলতি বছরের প্রথমার্ধে চিলির খনিগুলো থেকে তামা উত্তোলনে ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধির তথ্য প্রকাশিত হয়েছে ১৯ আগস্ট। এর জের ধরে ওই দিনই তাত্ক্ষণিকভাবে আন্তর্জাতিক বাজারে তামার দাম আগের তুলনায় বেড়েছে। লন্ডন মেটাল এক্সচেঞ্জে (এলএমই) দিন শেষে ভবিষ্যতে সরবরাহ চুক্তিতে প্রতি টন তামার দাম দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৬৬৭ ডলারে। এর আগের দিন ভবিষ্যতে সরবরাহ চুক্তিতে প্রতি টন তামা ৬ হাজার ৪৯২ ডলার ৫০ সেন্টে বেচাকেনা হয়েছিল।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »