Ultimate magazine theme for WordPress.

আবারো একসঙ্গে মেসি-নেইমার ?

0

©ক্রাইম টিভি বাংলা অনলাইন ডেস্ক: 

বার্সেলোনা সভাপতি সরাসরিই জানিয়ে দিয়েছেন, নেইমারকে কেনার মতো এতো টাকা এই মুহূর্তে নেই ক্লাবের। তাহলে একসঙ্গে কিভাবে দেখা যাচ্ছে এই জুটিকে? তাহলে কি মেসিই যাচ্ছেন পিএসজিতে? ইউরোপীয় ফুটবল বাজারে জোর গুঞ্জন এখন এমনই।

বার্সেলোনায় দু’জনে জুটি বেঁধে খেলেছেন ৪ বছর। এই সময়ে সম্ভাব্য সব ট্রফিই জিতেছে বার্সেলোনা। মেসি-নেইমার জুটিকে বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর জুটি বলা হচ্ছিলো। এরমধ্যেই সবাইকে চমকে দিয়ে হুট করে ক্লাব ছাড়লেন নেইমার। দলবদলের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ট্রান্সফার ফির রেকর্ড গড়ে, ২২০ মিলিয়ন ইউরোতে পাড়ি জমালেন ফরাসী ক্লাব পিএসজিতে।

গেল ৪ বছরে গুঞ্জন কম ওঠেনি। প্রিয় সতীর্থকে আবারো কাতালান ক্লাবটিতে ফেরাতে আপ্রাণ চেষ্টা করেছেন লিওনেল মেসি। বিভিন্ন সময়ে গণমাধ্যমে বলেছেন, নেইমারকে আবারো তার পাশে চান। স্প্যানিশ গণমাধ্যম মুন্দো দেপোর্তিভোকে ক্ষুদে জাদুকর বলেছেন, নেইমার হচ্ছেন তার ‘পার্টনার ইন ক্রাইম’। মাঠ এবং মাঠের বাইরে সবসময়ই তার সঙ্গ উপভোগ করতেন বলেও জানান মেসি।

বার্সায় ফিরতে উন্মুখ হয়ে ছিলেন নেইমারও। বিভিন্ন সময়ে তিনিও জানিয়েছেন, ফরাসী ক্লাবটি ছাড়তে চান তিনি। ফিরতে চান মেসির পাশে, নিজের পুরনো ডেরায়। কাতালান ক্লাব ছেড়ে যাওয়ায় সবসময়ই নিজের মধ্যে অপরাধবোধ কাজ করে বলেও বেশ কয়েকবার জানিয়েছেন ব্রাজিলিয়ান সেনসেশন।
তবে ক্লাব বার্সার প্রকাশ্য একটা ক্ষোভ ছিল তার ওপর। দুর্দান্ত ফর্মে থাকাবস্থায় হুট করেই ‘টাকার লোভে’ নেইমার দলবদল করে ক্লাবকে বিপর্যয়ের মুখে ঠেলে দিয়েছে বলে জানিয়েছে বার্সা কর্তৃপক্ষ।

তবে গেল মৌসুমে মেসির চাওয়াতে তাকে আবারো বার্সায় ফেরাতে বেশ চেষ্টা চালিয়েছিল ক্লাব। কিন্তু সেবার কোনভাবেই তাকে বিক্রি করেনি পিএসজি। আর এবার করোনা পরবর্তী পরিস্থিতিতে যে অর্থনৈতিক সংকট চলছে তাতে নেইমারকে কেনার মতো টাকাই নেই বার্সার, সরাসরি এমনটা জানিয়ে দিয়েছেন ক্লাব সভাপতি হোসে মারিয়া বার্তমেউ।

তার মানে নেইমারকে অন্তত এই মৌসুমেও বার্সার জার্সিতে দেখা যাচ্ছে না এটুকু নিশ্চিত। তাহলে মেসি-নেইমারকে একসঙ্গে দেখার উপায় কি? ইউরোপীয় বাজারে গুঞ্জন, সাবেক সতীর্থের সঙ্গে একসঙ্গে পিএসজির জার্সিতে দেখা যেতে পারে। তার মানে, মেসি যোগ দিচ্ছেন পিএসজিতে?

চলতি মৌসুমের পারফরম্যান্সে ক্লাবের ওপর বেশ বিরক্ত সুপারস্টার লিওনেল মেসি। লা লিগা ট্রফি হারানোর পর, বায়ার্ন মিউনিখের কাছে অপমানিত হয়ে বিদায় নিয়েছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকেও। এছাড়া ক্লাব কর্তৃপক্ষের উপরও চটে আছেন আর্জেন্টাইন তারকা। সবমিলিয়ে গুঞ্জন ওঠে, এই মৌসুমেই শৈশব-কৈশোরের প্রিয় ক্লাব বার্সেলোনাকে বিদায় জানাচ্ছেন ক্ষুদে জাদুকর। এরইমধ্যে গরম খবর, ন্যু ক্যাম্প থেকে সব গুছিয়ে বিদায়ের প্রস্তুতিও সেরে ফেলেছেন তিনি।

এরপরই তার সম্ভাব্য ঠিকানার হিসেব মেলাতে শুরু করেন বিশ্লেষকরা। শুরুতে তাকে পেতে হাত বাড়িয়েছিল ইন্টার মিলান। তবে মেসিকে কেনার মতো সামর্থ্য আদৌ আছে কিনা ইতালিয়ান ক্লাবটির সেই প্রশ্ন উঠছে।

বার্সার বেঁধে দেয়া বাই আউট ক্লজ অনুযায়ী মেসির বর্তমান বাজার দর ৭০০ মিলিয়ন ইউরো। বাংলাদেশি টাকায় ৭ হাজার কোটি টাকারও বেশি। এই অংক দেয়া কি সব ক্লাবের পক্ষে সম্ভব?

তবে বিশ্বসেরা ফুটবলারকে পেতে উঠেপড়ে লেগেছে ম্যানচেস্টার সিটি। যে কোনো মূল্যে তাকে পেতে চায় ইংলিশ জায়ান্টরা। পুরনো বস পেপ গার্দিওলা যে হাত বাড়িয়ে অপেক্ষা করছেন প্রিয় শিষ্য মেসির জন্য!

তবে সবকিছু ছাড়িয়ে মেসির ওপর সবচেয়ে বড় নজরটা পিএসজিরই। ইউরোপের অন্যতম ধনী ক্লাবটিও মেসির জন্য যেকোনো মূল্য দিতে রাজি।

অনেকে বলছেন, মেসিও তার পুরনো সতীর্থ নেইমারের সঙ্গে জুটি বাঁধতে বেশ আগ্রহী। সঙ্গে ক্লাবটিতে আরো আছেন তার স্বদেশী অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়া, মাওরো ইকার্দি। হালের আরেক সেনসেশন কিলিয়ান এমবাপ্পেও আছেন। সবমিলিয়ে ক্লাবটিকে নাকি বেশ মনেও ধরেছে ক্ষুদে জাদুকরের।

ক্লাবের আর্থিক অবস্থা আর মেসির মনের ভাব, দুইয়ে দুইয়ে চার মিলিয়ে অনেকেই বলছেন, আর্জেন্টাইন তারকা শেষপর্যন্ত পিএসজিতে পাড়ি জমালেও কেউই অবাক হবেন না! এখন কেবল সময়ের অপেক্ষা!

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »