Ultimate magazine theme for WordPress.

বিশ্বের সবচেয়ে খারাপ এয়ারলাইন্স ইসরায়েলের ‘এল আল’, তিন নম্বরে এয়ার ইন্ডিয়া

ফ্লাইট ওঠা-নামার নির্ধারিত সময়সূচির উপর। যেসব সংস্থার বিমান সবচেয়ে বেশি দেরি করেছে, তাদের পরিষেবার মান নীচে। সময়সূচি ছাড়াও ফ্লাইট ট্র্যাকিং, র‌্যাডার সার্ভিস, বিমান অবতরণের সময়- সবকিছুর আলোকেই ওই প্রতিবেদনে তালিকা করা হয়েছে বলে ফ্লাইটস্ট্যাটস-এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

0

ক্রাইম টিভি বাংলা নিউজ ডেস্ক:

বিমান পরিষেবায় বিশ্বের সবচেয়ে খারাপ এয়ারলাইন্সের তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে ইসরায়েলের ‘এল আল’। এ তালিকায় তিন নম্বরে স্থান পেয়েছে ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান এয়ার ইন্ডিয়া।​ খবর এনডিটিভি।
এভিয়েশন ইনসাইটস কোম্পানি ‘ফ্লাইট স্ট্যাটস’ প্রতিবছর বিশ্বের সব আন্তর্জাতিক এয়ারলাইন্সের কর্মক্ষমতার ওপর প্রতিবেদন তৈরি করে।
প্রতিবেদনে ওই তালিকা প্রকাশ করা হয়। খারাপ পরিষেবার বিচারে শতাংশের হিসেবে সবচেয়ে কম নম্বর পেয়েছে যেসব প্রতিষ্ঠান, তারাই পরিষেবায় এগিয়ে।

বিশ্বের বিভিন্ন বিমান সংস্থার কাছ থেকে তথ্য নিয়ে তৈরি করা হয়েছে এই প্রতিবেদন।
সেখানে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে, ফ্লাইট ওঠা-নামার নির্ধারিত সময়সূচির উপর। যেসব সংস্থার বিমান সবচেয়ে বেশি দেরি করেছে, তাদের পরিষেবার মান নীচে। সময়সূচি ছাড়াও ফ্লাইট ট্র্যাকিং, র‌্যাডার সার্ভিস, বিমান অবতরণের সময়- সবকিছুর আলোকেই ওই প্রতিবেদনে তালিকা করা হয়েছে বলে ফ্লাইটস্ট্যাটস-এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।


২০১৯ সালে সবচেয়ে খারাপ এয়ারলাইন্সের মধ্যে এক নম্বরে রয়েছে ইসরায়েলের ‘এল আল’।

এই প্রতিষ্ঠানটি পেয়েছে ৫৬ শতাংশ নম্বর পেয়েছে। আরবহুদিন ধরে লাভের মুখ না দেখা এয়ার ইন্ডিয়া পেয়েছে ৩৮ দশমিক ৭১ শতাংশ। তিন নম্বরে রয়েছে ভারতের এই রাষ্ট্রায়ত্ব প্রতিষ্ঠানটি।

দ্বিতীয় অবস্থানে  রয়েছে আইসল্যান্ড এয়ার। এ প্রতিষ্ঠানটি পেয়েছে ৪১ দশমিক ০৫ শতাংশ।

এছাড়া ৩৮ দশমিক ৩৩ শতাংশ নম্বর নিয়ে ফিলিপিন এয়ারলাইন্সের অবস্থান
চতুর্থ, পঞ্চম এশিয়ানা এয়ারলাইন্স (৩৭.৪৬ শতাংশ), ষষ্ঠ চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইন্স (৩৫.৮ শতাংশ),

সপ্তম হংকং এয়ারলাইন্স (৩৩.৪২), অষ্টম এয়ার চায়না (৩২.৩৭), নবম কোরিয়ান এয়ার (৩১.৭৪) এবং

দশম অবস্থানে রয়েছে হাইনান এয়ারলাইন্স (৩০.২)

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Translate »